দেবিদ্বরে কলেজ ছাত্র-প্রতিবন্ধী সহপ্রতিপক্ষকে ধর্ষন মামলায় জড়িয়ে হয়রানির অভিযোগে সাংবাদিকসম্মেলন

১২৬

দেবিদ্বার  প্রতিনিধিঃ

দেবিদ্বার উপজেলার ১২ নং ভানি ইউনিয়নের বরাট গ্রামের মৃতবাদশা মিয়ার পুত্র আঃ আউয়াল ও আঃ মালেকের পুত্র এরশাদেরর সাথেজমি-জমার মামলা এবং দখলীয় জমি দখলে ব্যর্থ হয়ে কলেজ ছাত্র সহপ্রতিপক্ষকে ধর্ষন মামলায় জড়িয়ে হয়রানির অভিযোগে সংবাদসম্মেলন করেছেন এক প্রতিবন্ধী ব্যাক্তি।লিখিত বক্তব্যে তিন বলেন, বিগত বেশ কয়েক বছর ধরে একটিকুচক্রি মহল বরাট বাজারের দোকানের ভিট নিজেদের দখলে নেওয়ারজন্য বিভিন্ন মানুষকে নানা ভাবে হয়রানি করে আসছে।

কিছুদিন আগে দুইটি দোকানের ভিট আমি আঃ আউয়ালএবং আমার মামা আঃ মালেকের পুত্র এরশাদ রেনু মিয়া সরকারেরকাছ হতে বায়না করে নিজেদের দখলে নেই। কিন্তু সেই ভিট দুুটিজোড় করে নিজেদের দখলে নেওয়ার জন্য হাবিব ড্রাইভারের পুত্রশাহিন তার ভাই সিরাজ ডিলারের নাতি রাব্বি সহ আরোকয়েকজন আমাদের উপড় চরাও হয় এবং মারধর করে।

এ বিষয়ে গত-২৪-০১-২০২০ ইং দেবিদ্বার থানায় ৮ জনকে আসামী করে একটিনিয়মিত মামলা দায়ের করি। এবং ঐ মামলার আসামীশাহিন,আরিফ এবং হাবিব ড্রাইভাারকে দেবিদ্বার থানা পুলিশগ্রেফতার করে কোর্টে চালান করে। অন্যদিকে এর দুইদিন পরে ২৬-০১-২০২০ ইং আমার কলেজ পড়–য়া ছেলে রাসেল এবং মামা এরশাদ ও
মেয়ের জামাই বিল্লাল হোসেনকে আসামী করে একটি কাউন্টারধর্ষণ মামলা করে যা এখন তদন্তনাধীন। আমার উপর নানা অত্যচারেরধারাবাহিকতায় এ মামলা করেছে তা দিবালোকের মতস্পষ্ট.এমতাবস্থায় এই মাামলার কারনে আমার ছেলে রাসেলের লেখাপড়া বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে।

আমি প্রসাশন এবং এলাকারগন্যমান্য ব্যাক্তিবর্র্গের কছে আকুল আবেদন জানাই আমরউপোরল্লিখিত বিষয়াদি বচেনা করে ন্যায় বিচার প্রাপ্তিতেসহায়তা করবেন। উল্লেখ্য বর্তমানে তারা নানা রকম ভয়ভিতিএবং হুমকি ধামকি দিয়ে আসছে যা আমি থানায় অবহিতকরেছি।

আরো পড়ুন: